সাসটেইনেবল কোস্টাল এন্ড মেরিন ফিশারিজ প্রজেক্ট মৎস্য অধিদপ্তর, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৭ জুলাই ২০২০

কম্পোনেন্টসমূহ

প্রধান প্রধান কার্যক্রম সমূহ:

কম্পোনেন্ট -1: মৎস্য খাতে টেকশই বিনিয়োগ ও প্রবৃদ্ধি অর্জনে সক্ষমতা বৃদ্ধি

 

  • বঙ্গোপসাগরে নিয়মিত বিজ্ঞানভিত্তিক জরিপ পরিচালনার মাধ্যমে সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের মজুদ নিরুপন
  • নিরুপিত মজুদের ভিত্তিতে ন্যাশনাল ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট প্লান প্রণয়ন
  • বিদ্যমান Monitoring Control & Surveillance (MCS) পদ্ধতি আধুনিকায়ন ও জোরদারকরণ (MFSS/C, Landing catch, CPUE, Onboard observer, Petrol boat, JMC, VMS/AIS)
  • মৎস্য নৌযানের  অন-লাইন ইলেট্রনিক রেজিস্ট্রেশন ও লাইন্সেসিং পদ্ধতি প্রবর্তণ
  • কর্মকর্তা, কর্মচারী ও সুবিধাভোগী ও সংশ্লিষ্ট অংশিজনদেরকে দেশি-বিদেশী প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ ব্যবস্থাপনায় সক্ষমতা বৃদ্ধি 
  • জনসচেনতা বৃদ্ধি করণ (ওয়ার্কসপ, সেমিনার, সভা ও রালি ইত্যাদির মাধ্যমে প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক মিডিয়ায় প্রচার)
  • মৎস্য সেক্টরে বিদ্যমান আইন বিধি-বিধান যুগোপোযুগী করা

 

কম্পোনেন্ট -০২: অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও উৎপাদন ব্যবস্থার উন্নয়ন

 

  • ১৮টি ফিশ ল্যান্ডিং সেন্টার/ফিশ হারবার নির্মাণ, ফিশ মার্কেট পুনবার্সন ও আধুনিকায়ন
  • ৩টি ফিশ হেলথ ডায়াগোনেস্টিক ল্যাব, ৩টি ফিশ কোয়ারেন্টাইন ল্যাব এবং ১টি কোয়ারেন্টাইন রেফারেন্স ল্যাব প্রতিষ্ঠাকরণ
  • ৩টি পিসিআর ল্যাব পুনবার্সন /আধুনিকায়ন
  • 1টি এসপিএফ বাগদা ব্রুড (মা-চিংড়ি) ম্যানেজম্যান্ট সেন্টার (বিএমসি) স্থাপন
  • ১২৯টি উপকূলীয় খাল (৫০০ হেক্টর) পুনবার্সন/খনন
  • মেরিন Spatial Plan তৈরি করা
  • হাইড্রোলজিক্যাল সার্ভে, স্যালানাইজেশন ম্যাপিং ও খাল পুনর্বাসন পরিকল্পনা প্রণয়ন
  • ভ্যালু চেইন ম্যাপিং ও এতদসংক্রান্ত ব্যবসার সুযোগ চিহ্নিতকরণ
  • চিংড়ি উৎপাদনে ক্লাষ্টার ব্যবস্থা (600টি, 15000জন প্রান্তিক চিংড়িচাষি) চালুকরণ, ক্লাস্টার বিজনেজ প্ল্যান তৈরি ও ই-ট্রেসিবিলিটি উন্নয়ন, ডাটা বেইজ তৈরী ও আইডি কার্ড প্রদান
  • প্রান্তিক চাষিদেরকে (600টি ক্লাস্টার) কন্ডিশনাল ম্যাচিং গ্রান্ট প্রদান (গড়ে 20% বেশি চিংড়ি উৎপাদ লক্ষ্যমাত্রা) 
  • এসএমই ভ্যালু চেইন ও একশান রিসার্চ এবং সামুদ্রিক মৎস্য চাষে একশান রিসার্চ পরিচালনা ও ম্যাচিং গ্র্যান্ট প্রদান

 

কম্পোনেন্ট -০৩: মৎস্যজীবি সম্প্রদায়ের ক্ষমতায়ন ও জীবিকায়নে বিকল্প পেশায় রূপান্তর

 

  • উপকূলীয় ৪৫০টি মৎস্য গ্রামে কার্যকরি গ্রুপ (CBO) প্রতিষ্ঠা করা
  • নির্দিষ্ট বৈশিষ্টের ভিত্তিতে উল্লিখিত ৪৫০টি মৎস্য গ্রামের মধ্য হতে ১০০টি মডেল জেলে গ্রাম প্রতিষ্ঠা করা এবং সেখানে ফিশারিজ ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদান
  • মডেল গ্রামের ১৮,০০০ যুবক-যুবতীকে ভকেশনাল ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ প্রদান
  • ১০০টি প্রডিউসার গ্রুপ তৈরি এবং নিবন্ধন করা
  • ৯০টি ইউথ ফেষ্টিভাল প্রোগ্রাম ও ৬টি জব ফেয়ার আয়োজন করা
  • ৪৫টি উপজেলা জেলে ফেডারেশন প্রতিষ্ঠা করা
  • এ কার্যক্রমে সর্বমোট 54,000 জন জেলে সরাসরি সুবিধা পাবে।

 

কম্পোনেন্ট- ০৪: প্রকল্প বাস্তবায়ন ব্যবস্থাপনা

 

  • প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য ১জন প্রকল্প পরিচালক, ৬জন উপ-প্রকল্প পরিচালক, 7 জন সহকারী প্রকল্প পরিচালক, ২জন নির্বাহী প্রকৌশলী, 3 জন সহকারী প্রকৌশলী ও ৭৮ জন মেরিন ফিশারিজ কর্মকর্তাসহ 2৩৮ জন কর্মকর্তা/কর্মচারি নিয়োজিত হবেন।
  • প্রকল্প কার্যক্রম দক্ষতার সাথে বাস্তবায়নের জন্য দেশী-বিদেশী পরামর্শক সমন্বয়ে ১টি Project Management Consultant (PMC) ফার্ম নিয়োগ করা হবে ।
  • সংশ্লিষ্ট  অংশিজনদেরকে নিয়ে একটি স্টিয়ারিং কমিটি, একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি প্রকল্পটি নিয়মিত তত্ত্ববধান ও মনিটরিং করবে ।
  • এ প্রকল্পের ইতিবাচক ফলাফল অর্জনের জন্য মৎস্য সেক্টরে বিশেষজ্ঞ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তাসহ এনজিও প্রতিনিধির সাথে প্রতি 6 মাস অন্তর বৈঠক করার জন্য একটি সিটিজেন প্লাটফরম-এর সংস্থান রয়েছে।

Share with :

Facebook Facebook